সহজেই গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় সমূহ

মুখের মেছতা দূর করার ৭টি কার্যকরি উপায়গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় আমরা আজকের এই পাঠে জানবো। আপনাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় সম্পর্কে জানার জন্য খোঁজাখুঁজি করেও সঠিক তথ্যটি জানতে পারেন না। তাই আপনি ও যদি এমনই একজন হয়ে থাকেন, তাহলে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন।
গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়
আপনি যদি শেষ পর্যন্ত আমাদের সাথেই থাকেন তাহলে আপনি ব্রণ দূর করতে গোলাপ জলের ব্যবহার করবেন কিভাবে, বর্তমান বাজারে গোলাপ জলের দাম কত? গোলাপ জল বানানোর নিয়ম কি? গোলাপ জল কখন ব্যবহার করতে হয়? এই সকল বিষয়ে বিস্তারিত জানতে পারবেন। তাই শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন।

পেজ সূচিপত্রঃ গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় বলতে গেলে প্রথমেই যেটি বলতে হয় সেটি হলো আমাদের কাজের ক্লান্তির কথা। সারাদিন বাহিরে কাজের পরে আমরা ক্লান্তি অনুভিব করি। যার ফলে আমাদের ত্বকের ভারসাম্য হাড়িয়ে যায়। আর তাই আমাদের মুখের উন্মুক্ত রন্ধ্রগুলি সরে গিয়ে ত্বকের ক্ষেত্রে বিরুপ প্রভাব ফেলে। আপনি এই গোলাপজল ব্যাবহারের ফলে ত্বকের উন্মুক্ত রন্ধ্রগুলিকে পূর্বের জায়গাতে পুনরায় ফিরিয়ে নিয়ে আসতে পারবেন।

এছাড়াও ত্বকের পিএইচ (PH) এর মান ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য এই গোলাপজল ব্যাবহার করা হয়। আর এটি যদি আপনি সঠিকভাবে ব্যাবহার করতে পারেন তাহলে অবশ্যই আপনি খুব সহজেই উজ্জ্বল ত্বক তৈরি করার মাধ্যমে অনেকটাই ফর্সা হতে পারবেন। তাহলে চলুন এই পর্যায়ে জেনে নেই গোলাপ জল কিভাবে ব্যাবহারের পলে আপনি ফর্সা হতে পারবেন।

ত্বক পরিষ্কার করার জন্য গোলাপ জল

আমাদের এখন প্রায় সকলেরই একটি অনেক কমন সমস্যা হলো ত্বকের অথবা মুখের উপরের দাগ। আর এই জন্যই আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা লষ্ট হয়ে যায়। খুব দ্রুত সময়ে আমাদের এই ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে নিয়ে আসার জন্য আমরা বাজারের প্রাপ্ত বিভিন্ন ধরণের ফেসওয়াশ বা ক্রিম ব্যাবহার করে থাকি। তবে আমরা অস্বিকার করতে পারবো না যে এই ফেসওয়াশ বা ক্রিমে ক্যামিকেল নেই।

ফেসওয়াশ বা ক্রিমের থাকা এই কেমিক্যাল আমাদের ত্বকের বিভিন্ন ধরণের ক্ষতি করতে পারে। তাই আপনি যদি কোন প্রকার ঝুঁকি ছাড়াই আপনার ত্বককে ফর্সা ও উজ্জ্বল করতে চান তাহলে আপনি এই গোলাপজল ব্যাবহার করতে পারেন। যদি এটি আপনি প্রতিদিন সকালে মুখ ধোয়ার সময়ে এবং রাতে ঘুমানোর পূর্বে এই গোলাপজল ব্যাবহার করে মুখ ধুয়ে নিয়ে ঘুমান তাহলে খুব দ্রুতই আপনার ত্বক উজ্জ্বল করার জন্য এটি অনেক সাহায্য করবে।

গোলাপ জল ব্যাবহার করার নিয়ম

আপনি যদি গোলাপ জল ব্যাবহার করার মাধ্যমে ফর্সা হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে এর পাশাপাশি আরো কিছু উপকরণের সাহায্য নিতেই হবে। কিভাবে সাহায্য নিয়ে খুব দ্রুত ফর্সা হবেন এই বিষয়েও আপনাদেরকে জানাবো। এজন্য প্রথমে আপনাকে একটি পরিষ্কার পাত্র নিতে হবে। তারপরে তাতে একটি ভিটামিন-ই ভেঙে নিয়ে তেল বের করে নিতে হবে।

তার সাথে দিতে হবে এক টেবিল চামচ সমপরিমাণ চাউলের গুঁড়া, আর তার সাথে দিতে হবে এক চা চামচ পরিমাণ গোলাপ জল। এরপরে আপনি এই সকল উপাদান নিয়ে নেওয়া হয়ে গেলে সেগুলো ভালোভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। তাহলে এটি একটি ফেসপ্যাকের মতো তৈরি হবে। এই উপাদানটি একবার ব্যাবহার করে নিয়ে আপনি ৩দিন পর্যন্ত ব্যাবহার করতে পারবেন।
তার জন্য আপনাকে সকালে ঘুম থেকে উঠে এই উপাদান কিছুটা তুলতো নিয়ে সুন্দর করে ঘষে ঘষে ত্বকের উপরে নাগাতে হবে। আবার রাতেও এমনভাবে ঘুমাতে যাওয়ার পূর্বে ব্যাবহার করতে হবে। এভাবে এই উপাদানটি মুখি লাগিয়ে নিয়ে আপনাকে ১৫ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। তারপরে যখন এটি শুকিয়ে আসবে তখন আপনাকে ঠান্ডা এবং পরিষ্কার পানি ব্যাবহার করে মুখ ধুয়ে নিতে হবে। এভাবে ৭ দিন ব্যাবহার করলে আপনি অনেক ভালো ফলাফল পাবেন।

তরতাজা এবং উজ্জ্বল ত্বকের জন্য গোলাপজলের ব্যাবহার

আমরা সকলেই চাই যে আমাদের ত্বক অনেকটাই তরতাজা এবং উজ্জ্বল থাকুক। আর এই জন্য আমাদের ত্বকের সঠিক যত্ন নিতে হবে। কিন্তু আমরা এই বিষয়ে অনেকটাই অসেতন। তাই এই জন্য আমরা বিভিন্ন ধরণের বিভিন্ন ব্রান্ডের প্রোডাক্ট ব্যাবহার করি। আর এই সকল প্রোডাক্ট দীর্ঘদিন ব্যাবহার করার ফলে আমাদের ত্বক অনেক মলিন হয়ে যায়। তখন ত্বকের সতেজতা ফিরিয়া নিয়ে আসার জন্য এই গোলাপজল ব্যাবহার করতে পারেন।

গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় হলো এর জন্য প্রথমে আপনাকে একটি পরিষ্কার পাত্র নিতে হবে। তাতে ১ টেবিল চামচ পরিমাণ শশার রস এবং মধু নিতে হবে। তারপরে তাতে ২ টেবিল চামচ পরিমাণ গোলাপ নিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। এই মিশ্রণটি ভালোভাবে তৈরি করে নিতে আপনাকে এটি সম্পূর্ণ মুখে লাগিয়ে নিতে হবে। মুখে লাগানো হয়ে গেলে আপনাকে ১৫ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

অথবা যতক্ষণ না এটি শুকিয়ে আসছে ততক্ষণ পর্যন্ত আপনাকে অপেক্ষা করতে হবে। যখন এটি শুকিয়ে আসবে তখন পরিষ্কার এবং ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। আপনাদের মধ্যে যারা খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে ত্বককে উজ্জ্বল করে তুলতে চান তারা এই গোলাপ জলের ফেস প্যাকটি বানিয়ে নিয়ে ব্যাবহার করতে পারেন।

ব্ল্যাকহেডস দূর করার জন্য গোলাপজল ব্যাবহারের নিয়ম

যখন আমরা আমাদের শরীরের সঠিকভাবে যত্ন না নেব তখন আমাদের চোখের নিচ দিয়ে ডার্ক সার্কেল বা ব্ল্যাকহেডস দেখা দেয়। আর আপনি যদি এই চোখের নিচের ব্ল্যাকহেডস নিয়ে বিব্রত হয়ে থাকেন এবং যদি সেটা দূর করতে চান তাহলে সেটি এই গোলাপজল ব্যাবহার করার মাধ্যমে খুব দ্রুতই দূর করতে পারবেন। কিভাবে ব্যাবহার করবেন চলুন জেনে নেওয়া যাক।

এটি ব্যাবহার করার জন্য প্রথমে আপনাকে নিতে হবে ১ টেবিল চামচ পরিমাণ মধু, ১ টেবিল চামচ পরিমাণ অ্যালোভেরা জেল এবং ১ টেবিল চামচ পরিমাণ গোলাপ জল। এই তিনটি উপাদান একসাথে মিশিয়ে নিয়ে একটি ফেসপ্যাক তৈরি করে নিতে হবে। তারপরে এটি আলতো হাতে সুন্দর করে মুখে লাগাতে হবে। যেখানে ব্ল্যাকহেডস বেশি পরিমাণে রয়েছে সেখানে তুলনামূলক একটু বেশি করেই লাগাতে হবে।

এই ফেস প্যাকটি লাগানোর পরে এভাবে ৩০ মিনিট সময় পর্যন্ত আপনাকে মুখে রেখে দিতে হবে। এভাবে কিছুদিন ব্যাবহারের ফলে আপনার ত্বক দ্রুত উজ্জ্বল হবে এবং আপনার চোখের নিচের ব্ল্যাকহেডস খুব দ্রুতই দূর হয়ে যাবে। আশা করছি এই বিষয়ে আপনাকে একটি সম্পূর্ণ ধারণা দিতে পেরেছি।

ব্রণ দূর করতে গোলাপ জলের ব্যবহার

গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় এর মধ্যে অন্যতম একটি বাধা হলো মুখের ব্রণ। এই মুখের ব্রণ দূর করতে গোলাপ জলের ব্যবহার অনেকটাই উপকারি। যদি আপনি এটি নিম্নের দেখানো সঠিক নিয়ম মেনে ব্যাবহার করেন তাহলে অল্প কিছু দিনের মধ্যেই আপনি এই সমস্যা থেকে খুব সহজেই মুক্তি পেতে পারবেন। কিভাবে ব্যাবহার করতে হবে তার সকল বিস্তারিত জানতে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকুন মনোযোগ দিয়ে।
ব্রণ দূর করতে গোলাপ জলের ব্যবহার
লেবুর সাথে গোলাপ জলঃ আমরা সকলেই কমবেশি জানি লেবুতে রয়েছে এসিডিক সকল ধরণের বৈশিষ্ট্য। আপনি যদি লেবু এবং গোলাপ জল একসাথে মিশিয়ে নিয়ে ব্যাবহার করেন তাহলে এটি আপনার ত্বকের ব্রণকে আর বারতে দিবে না। এটি তৈরির জন্য আপনি যতটুকু পরিমাণ লেবুর রস নিবেন তার থেকে দ্বিগুণ হারে আপনাকে নিতে হবে গোলাপ জল। তারপরে সেটি ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে ত্বকে লাগিয়ে রাখতে হবে। এরপরে এটি আপনাকে ১৫ মিনিট পরে ধুয়ে নিতে হবে।

মুলতানি মাটির সাথে গোলাপ জলঃ মুলতানি মাটির সাথে গোলাপজল মিশিয়ে নিয়ে একটি ফেসপ্যাক তৈরি করে ব্যাবহার করলে এটি আপনার ত্বকের ব্রণের সমস্যা দূর করতে অনেক বেশি সহায়তা করবে। এর জন্য ১ টেবিল চামচ পরিমাণ মুলতানি মাটির সাথে কিছুটা গোলাপজল মিশিয়ে নিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করুন। তারপরে এটি আপনার ত্বকে ব্যাবহার করুন। এটি ব্যাবহারে যেমন আপনার ত্বকের সমস্যা দূর হবে, তেমনি এটি আপনার ত্বকের উন্নতি করতে সহায়তা করবে।

কমলা লেবুর খোসার গুঁড়োর সথে গোলাপ জলঃ কমলা লেবুর খোসার গুড়ো তৈরি করা জন্য প্রথমে আপনাকে কিছু পরিমাণ কমলা লেবুর খোসা সংগ্রহ করে নিয়ে তারপরে তা রোদে শুকিয়ে নিতে হবে। রোদে যখন ভালোভাবে শুকিয়ে যাবে তখন এটি ভালো করে পিষে গুড় করে নিতে হবে। এই কমলা লেবুর খোসার গুড়োর সাথে কিছুটা পরিমাণ গোলাপজল মিশিয়ে নিতে হবে। তাহলে এটি একটি পেস্ট আকারে তৈরি হবে।

এই পেস্টটি আপনার মুখে ব্যাবহার করতে হবে। যখন এটি শুকিয়ে যাবে তখন এটি হালকা কুসুম গরম পানি ব্যাবহার করে ধুয়ে নিতে হবে। আমরা সকলেই জানি কমলা লেবুতে রয়েছে ভিটামিন-সি উপাদান। যেটি আমাদের ত্বকের সমস্যাকে বাড়তে দেয় না। তাই এটিও আপনার জন্য অনেক সহায়ক হবে।

আদার সাথে গোলাপ জলঃ আদা আমাদের হাতের নাগালেই সবসময় পাওয়া যায়। এটিতে রয়েছে বিভিন্ন ধরণের অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল গুণাবলী। যেটি আমাদের ত্বকের ব্রণের সমস্যা খুব দ্রুতই সমাধান করে দিতে পারে। এই মিশ্রণ যদি আপনি তৈরি করে ব্যাবহার করেন তাহলে এটি আপনার জন্য অনেক বেশি কার্যকর হবে।

চন্দনের গুঁড়োর সাথে গোলাপ জলের মিশ্রণঃ চন্দনের গুড়ো এখন যেকোন যায়গাতেই খুব সহজেই পাওয়া যায়। এই চন্দনের গুড়োতে রয়েছে বিভিন্ন অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান। যার ফলে এটি আমাদের ত্বকের ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণকে বাধা দেয়। যার জন্য এটিও অনেকটাই ব্রণের সমস্যা কমানোর জন্য সহায়ক।

গোলাপ জলের দাম কত

গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়গুলো আমরা ইতিপুর্বে সকলেই জানতে পেরেছি। এখন অনেকেই এমন প্রশ্ন করে থাকেন গোলাপ জলের দাম কত। আমরা যে গোলাপ জল কিনবো এটি কোথায় পাবো আর এর কেমনই বা দাম হতে পারে। এই পাঠের মধ্যে আমরা আপনাকে একটি এভারেজ ধারণা দেয়ার চেষ্টা করবো। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক।
এখন বাজারে বিভিন্ন ধরণের ব্রান্ডের গোলাপ জল পাওয়া যায়। আর তাই এই সকল পণ্যের ভিত্তিতে এর দাম কিছুটা কমবেশি হয়ে থাকে। তবে আপনি যদি গোলাপ জল কিনতে চান তাহলে আপনি ৭০ থেকে ১২০ টাকার মধ্যেই ৭৫ মিলিগ্রামের বোতল পেয়ে যাবেন। তবে আপনি যদি আরো উন্নত ধরণের নিতে চান তাহলে আপনার সেক্ষেত্রে ২৫০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত খরচ হতে পারে।

গোলাপ জল বানানোর নিয়ম

গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় সম্পর্কে আপনারা জানার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করতে পারেন গোলাপ জল বানানোর নিয়ম সম্পর্কে। অর্থাৎ কিভাবে ঘরে বসেই আপনি গোলাপজল তৈরি করে ফেলতে পারবেন সেই সম্পর্কে। যেহেতু এটি একটি বিশুদ্ধ প্রাকৃতিক উপাদান তাই এটি ত্বকের ওপরে কোন বাজে প্রভাব ফেলে না। তাহলে চলুন এখন আমরা জেনে নেই কিভাবে আপনি ঘরে বসে থেকেই গোলাপজল তৈরি করবেন তার সকল প্রসেস।
গোলাপ জল বানানোর নিয়ম
গোলাপ জল তৈরির জন্য আপনাকে প্রথমে কিছু উপকরণ সংগ্রহ করে নিতে হবে। সেগুলো হলো
  • ১ কাপ ফ্রেশ গোলাপের পাপড়ি (দোকানের কেমিক্যাল মিশ্রিত গোলাপ ব্যাবহার করা যাবে না)
  • ঢাকনা সহ তাপ নিরোধোক কাঁচের পাত্র
  • মিনারেল ওয়াটার অথবা ঝর্ণার পানি
  • একটি পরিষ্কার ছাঁকনি
গোলাপ জল তৈরির জন্য কার্যপ্রণালি নিম্নে দেওয়া হলোঃ
প্রথমে আপনাকে সংগ্রহকৃত গোলাপের পাপড়ি নিতে হবে। যদি এটি আপনি নিজের বাড়ির গাছের গোলাপ হয় তাহলে সেটি আরো অনেক ভালো হবে। যদি দোকানের গোলাপ নেন তাহলে সেটি নিয়ে এসে ব্যাবহার করার পূর্বে অবশ্যই ভালোভাবে ধুয়ে নিতে হবে। এখন সেই পাপড়িগুলো নিয়ে কাঁচের পাত্রে রাখুন। এখন দুই কাপ সমপরিমাণ পানি ফুটিয়ে নিন। তারপরে সেই পানি এবং গোলাপের পাপড়ি একসাথে কাঁচের পাত্রে রাখুন।

এখন সেই পানি এবং গোলাপের পাপড়ি একসাথে নিয়ে কাঁচের পাত্রে রেখে ঢাকনা দিয়ে ঢিকে রাখুন। তবে সেটি খেয়াল রাখবেন যেনো ৩০ মিনিট পর্যন্ত রাখবেন। যখন ৩০ মিনিট হয়ে যাবে তখন এটি বের করে নিয়ে ছাঁকনি দিয়ে ছেকে পানি এবং গোলাপের পাপড়ি আলাদা করে নিন। এভাবে সেই পানি সংগ্রহ করা হয়ে গেলে সেই পানি ফ্রিজে রেখে দিন।

তবে অবশ্যই এই বিষয়ে আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে এই গোলাপ জলের কোন প্রিজারভেটিভ না থাকার কারণে এটি ৭ দিন পর্যন্ত ভালো থাকবে। যখন ৭ দিন হয়ে যাবে তখন এই গোলাপ জল না ব্যাবহার করাই ভালো। ৭ দিন পরে এটি ফেলে দিয়ে আবার নতুন করে তৈরি করে নিতে হবে।

উপরের দেখানো এই পদ্ধতি ব্যাবহার করেই গোলাপজল তৈরি করা হয়। তারপরে সেটি বাজারে বিক্রি করা হয়। আপনি যদি না চান যে বাজার থেকে কিনবেন না, তাহলে আপনি উপরের দেখানো পদ্ধতি ব্যাবহার করে গোলাপ জল তৈরি করে নিতে পারেন। তবে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে গোলাপ সংগ্রহের জন্য কেমিক্যেল দেওয়া দোকানের গোলাপ ব্যাবহার করা যাবে না।

গোলাপ জলের অপকারিতা

গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় জানার পরে অনেকেই এই বিষয়ে জানার জন্য আগ্রহ প্রকাশ করে থাকেন গোলাপ জলের অপকারিতা সম্পর্কে। আপনি যদি এমন আগ্রহ প্রকাশ করে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে এই বিষয়ে জানা উচিত। তাহলে চলুন আর দেরি কেনো জেনে নেওয়া যাক বিস্তারিত।

গোলাপ জলের তেমন কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এখন পর্যন্ত খুঁজে জানা যায় নি। তবে গোলাপ জলের ভেতরে রয়েছে অপরিহার্য মাত্রায় তেল। যেটি অনেকের ক্ষেত্রে এলার্জির কারণ হয়েও দাড়াতে পারে। তাই আপনি যখন গোলাপজল ব্যাবহার করবেন তার পূর্বে অবশ্যই আপনাকে একটি প্যাচ টেস্ট করে নিতে হবে। এতে আপনি যদি গোলাপ জলের প্রতি সংবেদনশীল হন তাহলে কিছু অনুভব করতে পারবেন। সেগুলো হলো
  • চুলকানি হওয়া
  • জ্বালা অনুভব করা
  • লালচেভাব অথবা ফুসকুড়ি
উপরের উল্লিখিত এই সকল কারণগুলো হলো গোলাপ জলে এলার্জির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার লক্ষণ। আপনার ক্ষেত্রে যদি গোলাপ জল ব্যাবহার করলে এমন সমস্যা দেখা দেয় তাহলে অবশ্যই আপনাকে আর বেশি দেরি না করে একজন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সাথে দেখা করা উচিত। তাহলেই আপনি এর সমাধান পেয়ে যাবেন।

আপনি এটি পরিক্ষা করার জন্য কিছুটা পরিমাণ গোলাপজল আপনার বাহুতে রাখতে পারেন। তারপরে পরবর্তি ২৪ ঘন্টার মধ্যে যদি এটি কোন প্রতিকূল প্রতিক্রিয়া অথবা এলার্জির সমস্যা না করে তাহলে এটি আপনি নিরাপদেই কোথাও ব্যাবহার করতে পারেন। অন্যথায় আপনাকে অবশ্যই একজন চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।

গোলাপ জল সম্পর্কে সাধারণ জিজ্ঞাসা (FAQ)

প্রশ্নঃ গোলাপ জল কিভাবে ব্যবহার করতে হয়?
উত্তরঃ গোলাপ জল আপনি বিভিন্ন ভাবে ব্যাবহার করতে পারেন। যেমন
  • রাতে এবং সকালে মুখ ধোয়ার পরে কিছুটা গোলাপ জল স্প্রে করে নিতে পারেন।
  • অ্যালোভেরা জেলের সাথে মিশিয়ে মুখে ব্যাবহার করতে পারেন।
  • সানস্ক্রিন ক্রিম ব্যাবহারের পূর্বে অথবা পরবর্তি কোন এক সময়ে ব্যাবহার করতে পারেন।
প্রশ্নঃ গোলাপ জল কি ব্রণের দাগ দূর করতে সাহায্য করে?
উত্তরঃ সঠিক নিয়মে গোলাপজল ব্যাবহারের ফলে এটি মুখের তৈলাক্তভাব এবং ব্রণের মতো সমস্যা দূর করতেও সাহায্য করে।

প্রশ্নঃ গোলাপ জলের দাম কত?
উত্তরঃ ডাবর গুলাবাড়ি প্রিমিয়াম রোজ ওয়াটার 100% ন্যাচারাল অনলাইনে আপনি ১৭০ থেকে ২০০ টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবেন।

প্রশ্নঃ কোন গোলাপ জল মুখের জন্য ভালো?
উত্তরঃ মুখের জন্য বুলগেরিয়ান গোলাপ জল অথবা কনৌজ গোলাপকে অনেক ভালো ধরা হয়ে থাকে।

প্রশ্নঃ গোলাপ জল কি দিয়ে বানায়?
উত্তরঃ গোলাপ জল তৈরি করা হয় শুধু মাত্র বিশুদ্ধ গোলাপের পাপড়ি ব্যাবহার করে।

প্রশ্নঃ রাতে গোলাপ জল মুখে দিলে কি হয়?
উত্তরঃ রাতে যদি আপনি গোলাপ জল মুখে ব্যাবহার করেন তাহলে এটিতে থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান আমাদের ত্বকের দাগছোপ দূর করার জনু দারুনভাবে সাহায্য করে। তাই আপনার মুখের কালচে দাগ দূর করার জন্য এই গোলাপ জল ব্যাবহার করতে পারবেন।

শেষ বক্তব্য। গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

গোলাপ জল দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায় সম্পর্কে আমরা এই পাঠে বিস্তারিত আলোচনা করেছি। আশা করছি আপনি সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে এই বিষয়ে বিস্তারিত জানতে এবং বুঝতে পেরেছেন। এমন আরো তথ্যবহুল আর্টিকেল নিয়মিত পড়ার জন্য আমাদের সাথেই থাকুন। এতক্ষণ আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ আপনাকে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

পেপারস্পট২৪ এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url