মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ - ওজন কমানোর উপায়

স্কয়ার কোম্পানির ঘুমের ঔষধের নামপ্রিয় পাঠক, মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ আজকের এই আর্টিকেলে আমরা বিস্তারিত জানব। আপনি যদি মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ সম্পর্কে জানতে চান। তাহলে এই পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। ওজন কমানোর জন্য বিভিন্ন পদ্ধতি রয়েছে। কিন্তু সঠিক উপায়ে ওজন না কমালে শারীরিক ক্ষতি হতে পারে।
ওজন কমানোর উপায়
কথায় বলা হয়ে থাকে স্বাস্থ্যই সম্পদ। তাই আমাদের এই স্বাস্থ্য যদি অতিরিক্ত স্থুলতায় হয়ে যায় তাহলে তা আমাদের অনেক ক্ষতি করতে পারে। তাই সাস্থ্য ঠিক রাখতে আমাদের শরীরের অতিরিক্ত চর্বি দূর করা উচিত।

পোস্ট সূচিপত্রঃ মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ - ওজন কমানোর উপায়

ভুমিকা। মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ

আমরা সকলেই একটি সুস্থ, রোগমুক্ত জীবন চাই, এবং সুস্থ থাকার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপায় হল একটি পছন্দসই শরীরের ওজন বজায় রাখা। আমাদের শরীরের বেশি ওজনের কারণে বিভিন্ন ধরনের রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। শুধু তাই নয়, আমাদের শরীরের অতিরিক্ত ওজনের কারণে অস্বস্তি বোধ হয়। তাই মানসিক প্রশান্তির জন্য ও আমাদের শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বয়স ও তার উচ্চতার মতো আমাদের শরীরের ওজনকে নিয়ন্ত্রণে রাখা উচিত।

আপনি যদি আজকের এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকেন তাহলে আপনি বডি বিস্ট খেলে কি ওজন কমে, ১০ দিনে ১০ কেজি ওজন কমান মেয়েদের দ্রুত ওজন হ্রাস করার উপায়, ওজন কমানোর ঔষধ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। তাহলে চলন এখন বেশি দেরি না করে বিস্তারিত আলোচনায় যাওয়া যাক।

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধবর্তমান বাজারে প্রায় অনেক ধরনের রয়েছে। যেগুলো ব্যবহার করে মেয়েরা তাদের ওজন কমাতে পারবে। সেইখান থেকে যেগুলো ঔষধ অত্যন্ত ভালো সেগুলো সম্পর্কে নিম্নে আলোচনা করা হলো। এই ঔষধ গুলো ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই তার শরীরের মেদ কমাতে পারবেন।
মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ
আপনার শরীরে জমানো দীর্ঘ সময়ের মেদ আপনি নিচের দেখানো সকল ঔষধ ব্যবহার করার মাধ্যমে খুব সহজে কমিয়ে নিতে পারবেন। তাহলে চলুন এখন জেনে নেই কোন কোন ঔষধ আপনি ব্যবহার করবেন।

জিরোফ্যাট ১২০ এম জিঃ এই ঔষধটি মেয়েদের শরীরের অতিরিক্ত চর্বি কমানোর জন্য অনেক ভালো কার্যকরি একটি ঔষধ। তবে এই ঔষধটি যদি আপনি অতিরিক্ত মাত্রায় সেবন করেন তাহলে সেটি আপনার নেশায় পরিণত হতে পারে। কারণ এটি একটি ড্রাগ এডিক্টেড ওষুধ। তবে এটি যদি আপনি নিয়ম মেনে ভালোভাবে ব্যাবহার করেন তাহলে খুব সহজেই আপনার শরীরের ফ্যাট কমে যাবে।

নোফ্যাট ১২০ এম জিঃ এই ঔষধটিও শরীরের ফ্যাট কমানোর জন্য ও একটি কার্যকরি ঔষধ। আপনি যদি অতিরিক্ত মোটা হয়ে যান আর তারপরে আপনার শরীরকে স্বাভাবিক করতে চান তাহলে এই ঔষধটি আপনার জন্য হবে অনেক কার্যকরি। তবে অবশ্যই একজন ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে তারপরে ঔষধটি ব্যাবহার করবেন।

ফ্যাট বার্নারঃ এই ঔষধটি আপনি যেকোন ফার্মেসিতে নাও পেতে পারেন। তবে বড় বড় ফার্মেসিতে গিয়ে পেতে পারেন। এই ঔষধটিতেও শরীরের ফ্যাট কমানোর জন্য ড্রাগ এডিক্টেড জিনিস মিশানো থাকে। তাই অবশ্যই পরিমিত পরিমাণ গ্রহণ করুন। অতিরিক্ত গ্রহণ করলে আপনি সেই ঔষধের প্রতি এডিক্টেড হয়ে যেতে পারেন।

স্টিমুলান্টঃ এই ঔষধটি আপনি হয়ত সবজায়গায় পাবেন না। কারণ এটি বাহিরের দেশের কম্পানির একটি পণ্য। তাই এটি পেতে হলে আপনাকে অবশ্যই শহরের বড় বড় ফার্মেসিতে খোজ করতে হবে। এই ঔষধের ও কিছু পার্শপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। তাই একজন ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে গ্রহণ করুণ।

অ্যাডিপোনিলঃ এই ঔষধটি ইনসেপটা ফার্মাসিউটিক্যালস লিঃ এর। এই ওষধটির দাম ৪০ টাকা করে।

ডায়েটিলঃ এই ঔষধটি EsKayef (SK+F) বাংলাদেশ লিঃ এর। এই ওষধটির মূল্য ৪০ টাকা।

লোয়েটঃ এই ঔষধটি Albion ফার্মাসিউটিক্যালস লিঃ এর। এই ওষধটির মূল্য ৫৫ টাকা।

Olistat: এই ঔষধটি স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিঃ এর। এই ওষধটির মূল্য 60 টাকা।

অরলিফিটঃ এই ঔষধ প্রদানকারি কোম্পানির নাম হলো অপসোনিন ফার্মা লিঃ। এই ওষধটির মূল্য ৫০ টাকা।

স্লিমফাস্টঃ মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ প্রদানকারি এই কোম্পানির নাম হলো হেলথকেয়ার ফার্মাসিউটিক্যালস লিঃ। এই ওষধটির মূল্য ৫০ টাকা।

আয়ুর্বেদিক ওষধের মধ্যে রয়েছেঃ
লোফ্যাটঃ এই ঔষধটি প্রস্তুতকারি কোম্পানির নাম হলো এবি ফার্মাসিউটিক্যালস। এই ঔষধটির মূল্য ৮৬০ টাকা। যার মধ্যে আপনি ৫০ টি ক্যাপসুল পেয়ে যাবেন।

হাল্যাক্সঃ এই ঔষধটি প্রস্তুতকারি কোম্পানির নাম হলো হামদর্দ ল্যাবরেটরিজ। এই ঔষধটির মূল্য ১০০ টাকা। যার মধ্যে আপনি ৫০ টি ক্যাপসুল পেয়ে যাবেন।

ফ্যাট রিডিউসারঃ এই ঔষধটি প্রস্তুতকারি কোম্পানির নাম হলো মার্কো ইউনানী ফার্মা। এই ঔষধটির মূল্য ৪৫০ টাকা। যার মধ্যে আপনি ৩০ টি ক্যাপসুল পেয়ে যাবেন।

স্লিফিটঃ এই ঔষধটি প্রস্তুতকারি কোম্পানির নাম হলো হামজা ল্যাবরেটরীজ, ভাটারা, ঢাকা, বাংলাদেশ। এই ঔষধটির মূল্য ৫০০ টাকা। যার মধ্যে আপনি ৩০ টি ক্যাপসুল পেয়ে যাবেন।

স্লিমোরেক্সঃ এই ঔষধটি প্রস্তুতকারি কোম্পানির নাম হলো ইউনিড্রাগ ইউনানী ল্যাবরেটরীজ। এই ঔষধটির মূল্য ৩০০ টাকা। যার মধ্যে আপনি ৩০ টি ক্যাপসুল পেয়ে যাবেন।

নবীন চিরতাঃ এই ঔষধটির মূল্য ১৫০ টাকা। যার মধ্যে আপনি ৫০ টি ক্যাপসুল পেয়ে যাবেন।

মেয়েদের ওজন কমানোর জন্য বাংলাদেশের বাজারে প্রাপ্ত কিছু বিদেশি ওষধগুলো হলোঃ

বিদেশি ঔষধের নাম

ঔষধের মূল্য (টাকা)

AyurSlim 

৩১৫ টাকা

Obe Slim Fat Reducer

৮৫০ টাকা

Nano Fast Slim Thailand’s Slimming Capsule

১১৯০ টাকা

Forever Garcinia Plus 

১৬০০ টাকা

Saffron Capsul

৮৯৯ টাকা

True Slim Pro

২৩৬৮ টাকা

Detoxi Slim

৮৯৯ টাকা

Glow Zero

৪৫৫ টাকা

Super Slimming Herb Diet Pills

৬৫০ টাকা

Max Slim

৯৯৯ টাকা

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ এই সকল ছাড়াও বাজারে প্রায় আরো অনেক ধরনের ঔষধ রয়েছে। তবে আপনার জন্য ভালো হবে এমন ঔষধ সম্পর্কে আপনাদেরকে ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করলাম। তবে একটি কথা আপনাকে মনে রাখতে হবে, সকল ঔষধ ব্যবহার করার পূর্বে একজন ভালো ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়া আপনার জন্য উচিত হবে।

বডি বিস্ট খেলে কি ওজন কমে

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ খাওয়ার পাশাপাশি আমরা বডি বিস্ট খেলে কি ওজন কমে সেই সম্পর্কে জানবো। আমরা প্রায় অনেকেই জানি না যে বডি বিস্ট খেলে ওজন কমে কি না। তাই আপনি যদি এই বিষয়ে জানতে চান তাহলে আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন। তাহলে আপনি আপনার কাঙ্খিত উত্তরটি পাবেন আশা করছি।
বডি বিস্ট আপনাকে পেশী অর্জনে সহায়তা করার জন্য প্রণয়ন করা হয়েছে, যার অর্থ আপনার ডায়েট আপনার ওজন বাড়ানো বা কমছে কিনা তা প্রতিফলিত করে। কিন্তু শারীরিক ব্যায়ামের মাধ্যমে আপনার ওজন কমানো উচিত কারণ সবকিছুরই ভালো-মন্দ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া আছে। তাই কোনো ওষুধ খেয়ে ওজন কমানো উচিত নয়। এতে আপনার শরীরের অনেক ক্ষতি হতে পারে।

৩০ দিনে কি ওজন কমে ?

আমরা যারা আমাদের স্বাস্থ্য নিয়ে অনেক সন্ধিহান থাকি তারা সকলেই জানতে চাই কিভাবে ৩০ দিনেই শরীরের ওজন কমাবো। আপনি যদি এই বিষয়ে জানতে চান তাহলে চলুন এখন জেনে নেওয়া যাক। আশা করছি আপনি আপনার প্রশ্নের কাঙ্খিত উত্তরটি পাবেন। তাহলে চলুন এখন জেনে নেওয়া যাক।

৩০ দিনের মধ্যে ওজন কমানো সম্ভব, তবে আপনি কতটা ওজন কমাতে পারবেন তা আপনার উপর নির্ভর করে। বেশিরভাগ মানুষ বাস্তবিকভাবে প্রতি সপ্তাহে তাদের শরীরের ওজনের প্রায় 0.5% থেকে 1% হারাতে পারে, সিডিসি নিশ্চিত করে। ব্যায়াম করে, বারবার ছোট খাবার খেলে, খাবারের একটি নির্দিষ্ট তালিকা তৈরি করে, ঠিকমতো ঘুমালে, দুশ্চিন্তা না করে এবং নিয়মিত হাঁটার মাধ্যমে ৩০ দিনে ওজন কমানো সম্ভব। 30 দিনের জন্য কী এবং কখন করতে হবে তার একটি তালিকা তৈরি করার চেষ্টা করুন।

১০ দিনে কী ১০ কেজি ওজন কমানো উপায়

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ জানার পাশাপাশি ১০ দিনে কী ১০ কেজি ওজন কমানো উপায় সম্পর্কে আমাদের জানা উচিত। আপনি যদি অতিরিক্ত পরিমাণে স্থুলতা অনুভব করেন তাহলে আপনি চাইলে নিম্নে দেখানো উপায় গুলি অনুসরণ করলেই ১০ দিনেই আপনার ওজন কমাতে পারবেন। সেই সকল উপায় জানার জান্য আপনাকে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে।
১০ দিনে কী ১০ কেজি ওজন কমানো উপায়
আপনি ১০ দিনে ১০ কেজি ওজন কমাতে পারেন। তার জন্য আপনাকে প্রতিদিন এক ঘন্টা ব্যায়াম করতে হবে, নির্দিষ্ট সময়ে পর্যাপ্ত জল পান করতে হবে, পর্যাপ্ত ফল এবং শাকসবজি খেতে হবে, একটি পরিমিত ডায়েট সহ, নিয়মিত খাওয়া আপনি ব্যায়াম এবং একটি স্বাস্থ্যকর জীবন ধারার সাথে সহজেই দশ কেজি কমাতে পারেন। শরীরের উপর অত্যধিক চাপ ছাড়া প্রতিদিন নিয়মিত সমস্ত পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিত।

আশা করছি আপনি উপরের পদক্ষেপগুলি জানার মাধ্যমে আর যদি আপনি প্রতিদিন সেই সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করেন তাহলে আশা করছি আপনি আপনার শরীরের ওজন খুব সহজেই কমাতে পারবেন।

ওজন কমাতে প্রতিদিন ৫০০০ পদক্ষেপ কি যথেষ্ট

আমরা এমন অনেকেই আছি যারা প্রতিদিন সকালে হাটা হাটি করে থাকি। যাতে করে আমাদের শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানো সম্ভব হয়। আবার এমন অনেকেই আছি যারা সকলে অল্প একটু হাটাতেই ভেবে নেই এভাবেই আমাদের শরিরের ওজন হ্রাস হয়ে যাবে। যা মোটেও কোন সম্ভব নয়।

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ খেয়ে শরীরের ওজন কখনো একদিনে কমাতে পারবো না, আবার কখনো ওজন একদিনে কমেওনা। তাই আমাদের উচিত কোন ওষুধ গ্রহণ না করে প্রতিদিন ৫০০০ কদম হাঁটা। বলা যায় আমাদের শরীরের ওজন কমাতে প্রতিদিন ৫০০০ কদম হাঁটলে যথেষ্ট।

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর উপায়

অনেক মেয়ে বা মা বোনেরা রয়েছেন যারা তাদের শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমাতে চান। তাই তারা সকালে প্রাথমিক পদক্ষেপ হিসেবে সকালে হাটা হাটি করেন। তারা হাটা হাটি করেই ভাবেন যে তাদের শরীরের ওজন এভাবেই হ্রাস হবে। কিন্তু সেটা মোটেও করা উচিত নয়। আপনি যদি আপনার শরীরের ওজন কমাতে চান তাহলে আপনাকে নিম্নের দেখানো পদক্ষেপ গুলো গ্রহণ করতে হবে।

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর জন্য তাদের কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে।
  • কালো কফি পান করুন।
  • উপাস থাকা প্রয়োজন।
  • নিয়মিত সকালে লেবু পানি পান করা।
  • নিয়মিত চায়ের পরিবর্তে চিনি ছাড়া গ্রিন টি খাওয়া উচিত।
  • শাকসবজি ও ফলমূল খান।
  • ফাইবার যুক্ত খাদ্য খেতে হবে

লেবু দিয়ে ওজন কমান

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ জানার পাশাপাশি লেবু ব্যাবহার করে কিভাবে ওজন কমাতে হয় সেই সম্পর্কে জানা উচিত। এমন অনেকেই আছেন দেখবেন যারা তাদের শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানোর জন্য লেবু পান করে থাকেন। লেবু পান করলে শরীরের ওজন কমবে ঠিক আছে। তবে তার জন্যও আপনাকে কিছু পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে যেতে হবে। যা নিম্নে বলা হয়েছে।

আপনি চাইলে লেবু দিয়ে ওজন কমাতে পারেন। প্রতিদিন সকালে ৪০০ মিলি হলুদ গরম পানিতে ২ চা চামচ লেবুর রস সামান্য মধু মিশিয়ে পান করতে পারেন। এর ফলে আপনি দিনের বেলা যা খান তা সহজে হজম হয়। খালি পেটে লেবু জলে মধু মিশিয়ে খেলে ক্ষুধা কমে যায়। ফলে লেবু আপনাকে ওজন কমাতে সাহায্য করে।

আশা করছি আপনি উপরের দেখানো পদক্ষেপ যদি প্রতিদিন পালন করেন তাহলে খুব সহজেই আপনার শরীরের অতিরিক্ত ওজন হ্রাস করতে পারবেন। আর তা না হলে আপনি ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করতে পারেন।

৩০ দিনে ওজন হ্রাস করার উপায়

এতোক্ষণে আমরা ওজন কমানোর জন্য অনেক উপায় সম্পর্কে জেনেছে। আপনি এখানে দেখে হয়তো অবাক হয়েছেন। যে কিভাবে আবার ৩০ দিনে ওজন কমানো যায়। তার জন্য আপনাকে প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট নিয়মের মধ্য দিয়ে যেতে হবে। যেগুলো আপনি এখনি জানতে পারবেন।

প্রতিদিন এক ঘণ্টা ব্যায়াম করা, প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা, নির্দিষ্ট সময়ে প্রচুর ফল ও সবজি খাওয়া, পরিমিত খাবার খাওয়া, নিয়মিত ব্যায়াম করা এবং সহজে ওজন কমানোর জন্য স্বাস্থ্যকর জীবনধারা অনুসরণ করতে হবে। শরীরের উপর অত্যধিক চাপ ছাড়া প্রতিদিন নিয়মিত সমস্ত পদক্ষেপ অনুসরণ করা উচিত।

ওজন কমানোর ঔষধ

বিভিন্ন ধরনের ওষুধ তৈরি হয়েছে শরীরের ওজন কমানোর জন্য, কিন্তু ওষুধ খেয়ে শরীরের ওজন কমানো শরীরের জন্য ঠিক নয় এতে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে বা ক্ষতি হতে পারে। এইসব কারণে আমরা কোনো ঔষধের তালিকা করিনি কারণ এতে ক্ষতি ছাড়া কোন কিছুই লাভ নেই এবং ওজন কমানোর জন্য কোনো ওষুধ ব্যবহার না করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করছি।
৩০ দিনে ওজন হ্রাস করার উপায়
কৃত্রিম উপায়ে বা প্রাকৃতিক ওজন হ্রাস এবং ওষুধের ওজন হ্রাসের মধ্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। ওষুধের মাধ্যমে ওজন কমানোর ফলে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক সমস্যা হতে পারে। তাই আমার পরামর্শ হলো ওজন কমানোর জন্য ওষুধ ব্যবহার করবেন না।

ব্যায়াম না করে ওজন হ্রাস করার উপায়

মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ খাওয়ার পরে কেউ যদি নিয়মিত ব্যায়াম করা ছাড়াই তার শরীরের ওজন কমাতে চায় তাহলে তাকে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। প্রচুর পানি পান করা আমাদের শরীরকে অতিরিক্ত ক্যালোরি পোড়াতে সাহায্য করে। প্রতিদিন আধা লিটার পানি পান করলে আপনার শরীর থেকে অতিরিক্ত 23 ক্যালোরি বার্ন হবে। তাই ব্যায়াম ছাড়াই ওজন কমাতে সব সময় পানি পান করা উচিত।

৭ দিনে ওজন কমাতে হলে কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে সেগুলো হলোঃ
  • ৭ দিনের জন্য একটি ব্যায়াম পরিকল্পনা তৈরি করুন।
  • কিছু খাদ্যাভ্যাস ত্যাগ করতে হবে।
  • রাতে ভালো ঘুমের অভ্যাস করা উচিত।
  • মিষ্টি খাবার এবং পানিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলতে হবে।

প্রতিদিন এক কেজি ওজন হ্রাস করার উপায়

দিনে এক কেজি ওজন কমানোর দ্রুত উপায় হল প্রতিদিন এক ঘণ্টা ব্যায়াম করা, পর্যাপ্ত পানি খাওয়া, নির্দিষ্ট সময়ে প্রচুর ফল ও সবজি খাওয়া, পরিমিত খাবার, নিয়মিত ব্যায়াম করা এবং সহজে ওজন কমানোর জন্য স্বাস্থ্যকর জীবনধারা অনুসরণ করা। শরীরের উপর অত্যধিক চাপ ছাড়া প্রতিদিন নিয়মিত সমস্ত পদক্ষেপ অনুসরণ করা উচিত।

ওজন কমানোর উপায় সম্পর্কে সাধারণ জিজ্ঞাসা

প্রশ্নঃ ওজন কমাতে দিনে কত ক্যালরি খেতে হবে?
উত্তরঃ যদি প্রতিদিন ৭৭০০ ক্যালোরি ক্ষয় করা হয় তাহলে আমাদের শরীরের ওজন কমে। তাই আমাদের সেই BMI অনুযায়ী খাবার গ্রহণ করতে হবে।

প্রশ্নঃ গরম পানি খেলে ১ মাসে কতটুকু ওজন কমে?
উত্তরঃ প্রতিদিন নিয়োমিত গ্ররম পানি খেলে আমাদের শরীরের ওজনের ওপর কোন প্রভাব ফেলে না।

প্রশ্নঃ চর্বি কমানোর ওষুধের নাম কি?
উত্তরঃ চর্বি কমানোর ওষুধের নামগুলো হলো কোবিস ১২০, ও স্ট‌্য়াট ১৫০, ওবেলিট ১২০, অবিলিক্স ১২০ ইত্যাদি। তবে সকল ওষধ অবশ্যই আপনাকে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ি গ্রহণ করতে হবে।

প্রশ্নঃ সকালে খালি পেটে কি খেলে শরীর মোটা হয়?
উত্তরঃ সকালে খালি পেটে দুধ, কলা, ডিম এবং খেজুর খেলে শরীর মোটা করা সম্ভব।

প্রশ্নঃ ৩০ মিনিট হাটলে কত ক্যালরি খরচ হয়?
উত্তরঃ ৩০ মিনিট হাটলে 100-200 ক্যালোরি খরচ হয়।

প্রশ্নঃ জুনিপার কি ওজন কমাতে কাজ করে?
উত্তরঃ হ্যা। এটি একটি কার্যকরি দীর্ঘমেয়াদি চিকিৎসা।

প্রশ্নঃ ১০ কেজি ওজন কমাতে মাসে কত কিলোমিটার দৌড়াতে হয়?
উত্তরঃ ১০ কেজি ওজন কমাতে এক মাসে 1232 কিলোমিটার দৌড়াতে হয়।

প্রশ্নঃ ৫ মাইল হাটলে কত ক্যালরি খরচ হয়?
উত্তরঃ ৫ মাইল হাটলে 500 ক্যালোরির সমান খরচ হয়।

প্রশ্নঃ প্রতিদিন কত কিলোমিটার হাটলে ১ কেজি ওজন কমে?
উত্তরঃ আপনাকে ১ কেজি ওজন কমানোর জন্য প্রতিদিন প্রায় ৭৭ কিমি হাটতে হবে।

লেখকের মন্তব্য। মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ

প্রিয় বন্ধুরা আজকে আমরা মেয়েদের দ্রুত ওজন কমানোর ঔষধ সম্পর্কে জেনেছি। আমাদের পোস্টগুলো যদি আপনাদের ভালো লাগে তাহলে বন্ধুদের মাঝে অবশ্যই শেয়ার করবেন। আর এই রকম আরো তথ্যবহুল আর্টিকেল প্রতিদিন নিয়োমিত পড়তে আমাদের সাথেই থাকুন। আজকে এই পর্যন্তই দেখা হচ্ছে আরও কোন আর্টিকেলের সাথে। ততক্ষণ পর্যন্ত ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন। ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

পেপারস্পট২৪ এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url