গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ বের করুন সহজেই

অনলাইনে ভোটার আইডি কার্ড সংশোধনগাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ সম্পর্কে জানার জন্য আপনি কি আগ্রহি। তাহলে আপনি এখন সঠিক জায়গাতেই রয়েছেন। কারণ আজকের এই আর্টিকেলে গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ সম্পর্কেই বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। তাই আপনি যদি উক্ত বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চান তাহলে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন।
গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ
বর্তমান সময়ে সকল কিছু ডিজিটালাইজ হওয়ার কারণে আপনি প্রায় সকল কিছুই অনলাইনের মাধ্যমেই পেয়ে যাবেন। তেমনি আপনি গাড়ির সকল কাগজ ও অনলাইনের মাধ্যমে চেক করে নিতে পারবেন।

পেজ সূচিপত্রঃ

ভূমিকা

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ, আপনি যখন একটি পুরাতন অথবা নতুন কোন গাড়ি ক্রয় করবেন তখন আপনাকে কিছু সেই গাড়ির কাগজ পত্র দেওয়া হবে। আপনি যদি চান তাহলে সেই সকল তথ্য থেকে আপনি অনলাইনের মাধ্যমেই গাড়ির সকল তথ্য বের করে নিতে পারবেন। আর যদি আপনি সেই সকল তথ্য চেক না করে গাড়ি কিনে থাকেন আর গাড়িটি যদি অবৈধ হয়ে থাকে তাহলে আপনাকে অনেক পুলিশি ঝামেলায় পড়তে হবে।

আপনি যদি আজকের এই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়তে থাকেন তাহলে আপনি গাড়ির কাগজ চেক করার নিয়ম, গাড়ির কাগজ চেক করার সফটওয়্যার, গাড়ির কাগজ করতে কত টাকা লাগে, গাড়ির নাম্বার দিয়ে ফিটনেস চেক সহ আরো অনেক কিছু জানতে পারবেন। তাহলে আর দেরি কেনো চলুন তাহলে এখন বিস্তারিত আলোচনায় যাওয়া যাক।

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ

শুধুমাত্র একটি গাড়ির নাম্বার দিয়ে সেই গাড়ির প্রকৃত মালিক কে সেই সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন খুব সহজেই। আবার সেটি হলো আপনার ফোন থেকেই জেনে নিতে পারবে। এই সকল তথ্য জানতে শুধুমাত্র গাড়িটির নাম্বার প্রয়োজন হবে। তাহলে চলুন আমরা এখন খুব সহজেই জেনে নেই কিভাবে আপনি এই কাজটি করবেন।

ধাপ ০১ঃ গাড়ির এই সকল তথ্য খুজে পাওয়ার জন্য প্রথমে আপনার কম্পিউটার অথবা ফোন থেকে একটি ব্রাউজারে গিয়ে সেখানে "bsp brta" লিখে সার্চ করতে হবে। এখন আপনার সামনে কিছু ওয়েবসাইটের রেজাল্ট দেখতে পাবেন। সেখান থেকে প্রথমে যেই ওয়েবসাইট পাবেন সেটিতে প্রবেশ করুন।

ধাপ ০২ঃ এই ওয়েবসাইটের মধ্যে প্রবেশ করার পরে আপনাকে সেখানে একটি একাউন্ট তৈরি করে নিতে হবে। তার জন্য আপনার প্রয়োজন হবে একটি ইমেইল এড্রেস অথবা একটি ফোন নাম্বার। আর তারপরে সেখানে যেগুলো তথ্য চাইবে সেখানে সেই সকল তথ্য দিয়ে আপনার জন্য একটি একাউন্ট রেজিশট্রেশন করে নিতে হবে।

ধাপ ০৩ঃ আপনার যদি একটি একাউন্ট সঠিকভাবে রেজিশট্রেশন করা হয়ে থাকে তাহলে তার পাশেই আপনি "প্রবেশ করুন" নামে একটি বাটন দেখতে পাবেন। সেখানে ক্লিক করুন। এখানে ক্লিক করলেই আপনাকে এখান লগইন করতে বলা হবে। এখন আপনি যেই নাম্বার অথবা ই-মেইল দিয়ে একাউন্ট খুলেছিলেন সেই সকল তথ্য দিয়ে একাউন্টটি লগইন করে নিতে হবে।

ধাপ ০৪ঃ আপনার একাউন্ট লগইন করা হলে এখন আপনাকে একটি পেজে নিয়ে যাওয়া হবে। সেখানে একটি অপশান দেখতে পাবেন "মোটরযানের তথ্য" নামে। এই "মোটরযানের তথ্য" নামক অপশানে ক্লিক করুন। এখন আপনার সামনে একটি ফর্ম আসবে। এই ফর্মে যে সকল তথ্য চাইবে আপনার কাছে থেকে সকল তথ্য সঠিকভাবে দিয়ে পূরণ করে দিন।

ধাপ ০৫ঃ ফর্মের সকল তথ্য পূরণ করার সময়ে আপনার কাছে থেকে সেখানে একটি তথ্য জানতে চাইবে আর সেটি হলো রেজিস্ট্রেশান নাম্বার। এখানে আপনি যার গাড়ির তথ্যটি জানতে চাচ্ছেন তার রেজিস্ট্রেশান নাম্বার দিয়ে দিবেন।

ধাপ ০৬ঃ আপনার সকল তথ্য সঠিকভাবে পূরণ করা হয়ে গেলে আপনি সেখানেই "অনুসন্ধান" নামে একটি অপশান পাবেন। সেখানে ক্লিক করুন। তাহলেই এখন আপনার সেই গাড়িটির সকল তথ্য আপনি দেখতে পাবেন।

গাড়ির কাগজ চেক করার নিয়ম

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ জেনে নিয়ে একটি গাড়ি ক্রয় করার সময় সেই গাড়ি কাগজ পত্র চেক করে নিতে হয়। আর এটা আমাদের সকলেরই করা উচিত। আর তা না হলে আমরা বিভিন্ন আইনি জটিলতায় পরতে পারি। সেই সকল ঝামেলার হাত হতে রেহাই পাওয়ার জন্য আমাদের এই কাজ করা উচিত। এখন আমাদের মনে প্রশ্ন আসতে পারে আমরা কিভাবে করবো। আর এই কাজ তো অনেক ঝামেলার কাজ।

আপনি যখন এই পোস্টটি খুজে পড়তেছেন, তার মানে আপনার কোন চিন্তা নেই। কিভাবে কি করে সকল কাজ করতে হবে সেই সকল প্রসেস আমরা আপনাকে এখন শিখাতে চলেছি। তো তাহলে আর কোথাও কোন দেরি না করে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন। আশা করছি আপনি সকল কিছু পরিষ্কারভাবে জানতে পারবেন।

অনলাইনে গাড়ির কাগজ চেক

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ জেনে বাড়িতে বসে থেকেই গাড়ির কাগজ চেক করে নিতে পারবেন। আপনি যদি এখন গাড়ির সকল কাগজ পত্র চেক করতে চান তাহলে আপনাকে এখন আর BRTA অফিসে যেতে হবে না। এই সকল কাজ আপনি ঘরে বসে থেকেই করে নিতে পারবেন এক নিমিশেই। আপনি যদি এই সকল কাজ করতে চান তাহলে অবশ্যই নিচের দেখানো নিয়মগুলো অনুসরণ করুন।
আপনি যদি গাড়ির সকল তথ্য জানতে চান তাহলে মেসেজ করার মাধ্যমে সেই সকল তথ্য জেনে নিতে পারবেন। আর মেসেজ করার জন্য প্রথমে আপনাকে ফোনের মেসেজ অপশানে চলে যেতে হবে। আর সেখানে গিইয়ে লিখতে হবে DL < Space>Reference number। আর এই মেসেজ আপনাকে পাঠিয়ে দিতে হবে 26969 নম্বারে।

মেসেজ পাঠানোর কিছুক্ষণ পরে আপনার কাছে একটি ফিরতি মেসেজ আসবে। আর সেই মেসেজ এর মাধ্যমে আপনি সেই গাড়ির সকল তথ্য গাড়ির ড্রাইভিং লাইসেন্স সম্পর্কেও জানতে পারবেন। নিম্নে মেসেজের একটি উদাহরণ দেওয়া হলো।

মেসেজ উদাঃ DL DM 3M0D5

আপনি যদি চান তাহলে আপনার ফোন থেকেই আপনার মোটর সাইকেলের সকল তথ্য চেক করে নিতে পারবেন। আর এই জন্য আপনাকে মেসেজ পাঠাতে হবে 26969 নম্বারে। আর সেই মেসেজে লিখতে হবে NP<Space>DRC। আর তারপরেই আপনি একটি ফিরতি মেসেজ পাবেন। আর সেখানেই সকল তথ্য জেনতে পারবেন।

বিআরটিএ গাড়ির কাগজ চেক

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ জেনে নিয়ে আমাদেরকে সেই গাড়ির প্রকৃত মালিক সম্পর্কে খোজ নেওয়া উচিত। আমরা যারা ব্যাবহার করা গাড়ি কিনে থাকি সেই গাড়ির প্রকৃত মালিক কে সেই সম্পর্কে সঠিক তথ্য জানা উচিত আমাদের গাড়ি কিনার ক্ষেত্রে। আর এই তথ্য জানতে আপনাকে কোথাও কোন দোড়াদোড়ি করতে হবে না। বরং আপনি এই কাজ ঘরে বসে থেকেই আপনার স্মার্ট ফোনটি দিয়ে করে নিতে পারবেন।

আর এই সকল তথ্য চেক করলে আপনি জানতে পারবেন আপনার ক্রয়কৃত গাড়ির নামে কোন মামলা রয়েছে কিনা। আর সেই গাড়ির প্রকৃত মালিক কে। কার নামে গাড়িটি রেজিষ্ট্রেশন করা রয়েছে সেই সম্পর্কেও বিস্তারিত জানতে পারবেন। তাহলে চলুন এখন আমরা জেনে নেই কিভাবে আপনি এই কাজটি করবেন।

স্টেপ ১ঃ আপনার এই কাজটি করার জন্য আপনি প্রথমে একটি ব্রাউজার ওপেন করে নিয়ে সেখানে সার্চ বারে গিয়ে লিখবে "bsp.brta.gov.bd"। এই কথাটি লিখার পরে আপনার সামনে অনেকগুলি ওয়েবসাইট দেখতে পারবেন। সেখান থেকে প্রথমের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন।

ওয়েবসাইটের ভেতরে প্রবেশ করার পরে সেখানে আপনাকে একটি একাউন্ট খুলতে হবে। আর তার জন্য প্রয়োজন হবে আপনার একটি ভোটার আইডি কার্ড, সেখানের নাম, জন্ম তারিখ আর তার সাথে প্রয়োজন হবে একটি ফোন নাম্বার ও একটি ই-মেইল এড্রেস। এই সকল তথ্য দিয়ে সেখানে একটি একাউন্ট বানিয়ে নিন।

স্টেপ ২ঃ আপনার যদি একটি একাউন্ট সঠিকভাবে খোলা হয়ে থাকে, এখন আপনি সেখানে আপনার ইউজার নেইম আর পাসওয়ার্ড দিয়ে আপনার সবেমাত্র একাউন্টটি লগইন করে নিন। এখন আপনি ওয়েবসাইটের ভেতরে প্রবেশ করলেই একটি অপশান পাবেন। সেখানে লিখা রয়েছে দেখবেন "মোটরযান তথ্য"।

এই লিখার উপরে ক্লিক করবেন। আর এখানে প্রবেশ করলেই আপনি এমন লিখা দেখতে পাবেন "কোন তথ্য পাওয়া যায়নি"। এখন সেখান থেকে আপনাকে ক্লিক করতে হবে "মোটরযান সংযুক্ত করুন" এই অপশানটিতে।

স্টেপ ৩ঃ "মোটরযান সংযুক্ত করুন" এই অপশানে ক্লিক করলে আপনার মোটরযানের কিছু তথ্য চাইবে। সেই সকল তথ্য প্রদান করুন। এখানে আপনার থেকে প্রথমে মোটরযানের রেজিস্ট্রেশন নম্বর চাইবে সেটি দিতে হবে। আর তার সাথে এখানে মোটরযানের শেষের চার সংখ্যা বসাতে হবে।

স্টেপ ৪ঃ এখন আপনার কাছে থেকে জানতে চাইবে গাড়িটি উৎপাদনের তারিখ অথবা এটা জানতে চাইতে পারে গাড়িটি উৎপাদনের বছর। তার পরে সেখান গাড়িটির চেসিস নাম্বার এবং ইঞ্জিন নাম্বারের তথ্য সঠিকভাবে প্রদান করতে হবে।

এখন আপনার গাড়ির সকল তথ্য এখানে প্রদান করা হয়ে গেলে সেখানে আপনি "অনুসন্ধান" অনুসন্ধান নামক একটি বাটন দেখতে পাবেন। সেখানে আলতো ক্লিক করুন। এই অপশানটিতে ক্লিক করার পরে আপনার গড়ির সকল তথ্য এখানে দেখতে পারবেন। গাড়িটির নামে কোন মামলা রয়েছে কিনা সেটি জানতে নিচের স্টেপ গুলি অনুসরণ করুন।

স্টেপ ৫ঃ এখন আপনি যদি জানতে চান যে আপনার ক্রয়কৃত গাড়িটির নামে কোন মামলা রয়েছে কিনা। আর এই মামলার তথ্য জানতে এখানে একটি অপশান দেখতে পাবেন "সংযুক্ত করুন" নামে। এই "সংযুক্ত করুন" অপশানে ক্লিক করুন। এখানে ক্লিক করার পরে ''মোটরযান তথ্য" এই অপুশানটিতে আবার ক্লিক করুন। এখানে ক্লিক করলেই আপনার গড়ির সকল তথ্য এখানে সংযুক্ত হবে।

স্টেপ ৬ঃ আপনি যদি উপরে দেখানো অপশানে ক্লিক করেন তাহলে আপনার গাড়িটির সকল তথ্য আপনি পুনরায় দেখতে পারবেন। এখন যদি আপনি একটি ডান দিকে তথ্যটি টান দেন তাহলেই দেখতে পারবেন আপনার গাড়িটির নামে কোন মামলা রয়েছে কিনা।

গাড়ির কাগজ চেক করার সফটওয়্যার

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ জেনে নিয়ে আপনি গাড়ির কাগজ চেক করার সফটওয়্যার দিয়েই গাড়ির সকল তথ্য বের করে নিতে পারবেন। আমাদের অনেক সময়ে বিভিন্ন প্রয়োজনে গাড়ির সকল কাগজ পত্রাদি চেক করতে হয়। আর এই কাগজ পত্র আপনি BRTA এর অফিশিয়াল ওয়েব সাইট থেকে ও চেক করে নিতে পারবেন খুব সহজেই। আবার এই গাড়ির সকল কাগজ পত্র আপনি চাইলে একটি মোবাইল এর সফটওয়্যার ব্যাবহার করে ও করে ফেলতে পারেন।

গাড়ির কাগজ চেক করার সফটওয়্যার এর নাম হলো CarInfo। আপনি এই মোবাইল সফটওয়্যারের মাধ্যমে সমস্ত যানবাহনের তথ্য এবং RTO গাড়ির তথ্য জানতে পারবেন। আবার আপনি যদি চান তাহলে এই সফটওয়্যারের মাধ্যমে গাড়ির নামে বীমা ও করতে পারবেন।

আবার আপনি চাইলে আপনার গাড়ি বিক্রি ও করতে পারবেন। আপনার গাড়ির চালান চেক করতে পারবেন। আবার আপনি যদি চান তাহলে আপনি অপর একটি নতুন গাড়ি ক্রয় ও করতে পারবেন।

তবে গাড়ির সকল কাগজ পত্রাদি চেক করার জন্য নির্দিষ্ট কোন সফটওয়্যার নেই। অথবা সেটা রিলিজ করা হয়নি। তবে আপনার যদি কোন তথ্য খুবই প্রয়োজন হয় তাহলে আপনি BRTA এর অফিশিয়াল ওয়েব সাইট থেকে আপনার সেই তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন। আর কোন ওয়াবসাইটের ঝামেলা ছাড়াই কিভাবে গাড়ির তথ্য যাচাই করতে হয় সেটা আমরা ইতিমধ্যেই আপনাদেরকে জানিয়েছি।

গাড়ির নাম্বার দিয়ে ফিটনেস চেক

একটি গাড়ির নাম্বার দিয়ে আপনি খুব সহজেই অনেক দ্রুত সেই গাড়ি ফিটনেস চেক করে নিতে পারবেন। আর এই কাজ বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ) হাতের মুঠোয় নিয়ে চলে এসেছে। এখন আপনি যোকোন মোবাইল ফোন দিয়ে একটি SMS পাঠানোর মাধ্যমে সকল তথ্য খুব সহজেই যাচাই করতে পারবেন।
যেকোন মোটরযানের ফিটনেস, ট্যাক্স টোকেন ও রুট পারমিট এই সকল তথ্য জানার জন্য শুধুমাত্র একটি মেসেজ পাঠানোই যথেষ্ট। আর এই মেসেজ পাঠানোর জন্য আপনাকে ফোনের মেসেজ অপশানে গিয়ে লিখতে হবে VR<Space>Registration Number এটি লিখার পরে সেই মেসেজ পাঠিয়ে দিতে হবে 01552146222 এই নাম্বারে।

মেসেজ পাঠানোর উদাহরণঃ গাড়ির নাম্বার DHAKA METRO-TA-13-1530 এটা হলে মেসেজ পাঠানোর নিয়ম VR DHAKAMETRO-TA -13-1530

এইভাবে লিখে মেসেজ পাঠানোর কিছুক্ষণের পরেই আপনি একটি ফিরতি মাসেজ পাবেন। আর সেখানেই আপনার চাওয়া সকল তথ্য লিখা থাকবে। মেসেজের রিপ্লে এমন ধরণের হবে। যেমনঃ
  • Vehicle No: DHAKA METRO-TA-13-1530.
  • Fitness Expire: 28-JUN 2023.
  • Taxtoken Expire: 28-AUG-2023.
  • Route Permit Expire: 27-JUL-23
  • Thanks, BRTA

গাড়ির নাম্বার চেক অনলাইন

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ জেনে নিয়ে একটি গাড়ির শুধুমাত্র নাম্বার প্লেটের নাম্বার থেকে সেই গাড়ির সম্পর্কে সকল তথ্য বের করতে পারবেন খুব সহজেই। এই নাম্বার থেকে আপনি সেই গাড়ির মালিক, গাড়ির রেজিস্ট্রেশন সম্পর্কে ও বিভিন্ন তথ্য জানতে পারবেন। তাহলে চলুন এখন আমরা জেনে নেই কিভাবে এই গাড়ির নাম্বার অনলাইনের মাধ্যমে চেক করবো।

একটি গাড়ির নাম্বার সম্পর্কে সকল তথ্য অনলাইন থেকে সাধারণত দুটি পদ্ধতির মাধ্যমে জানা যায়। সেগুলো সম্পর্কে নিম্নে সবিস্তারে আলোচনা করা হবে। যাতে করে আপনাদের বুঝতে কোথাও কোন সমস্যা না হয়। গাড়ির সম্পর্কে জানার দুটি নিয়ম হলো
  • পরিবহন মন্ত্রণালয়ের (BRTA) অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে
  • পরিবহন অ্যাপের মাধ্যমে
পরিবহন মন্ত্রণালয়ের (BRTA) অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে গাড়ির সম্পর্কে তথ্য জানতে নিম্নের দেখানো ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

ধাপ-০১ঃ সবার প্রথমে আপনাকে আপনার কম্পিউটার অথবা মোবাইল ফোন থেকে আপনার পছন্দমতো একটি ব্রাউজার সিলেক্ট করে নিন। পরিবহন মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার জন্য ব্রাউজারের সার্চ বারে গিয়ে লিখুন vahan.parivahan.gov.in করতে হবে।

ধাপ-০২ঃ এখন ওয়েবসাইটের ভেতরে প্রবেশ করুন। আর ওয়েবসাইটে মেন্যু থেকে "Information Details" নামক অপশানে ক্লিক করুন। এখানে যাওয়ার পরে আপনাকে "Know Your Vehicle Details" এখানে ক্লিক করতে হবে।

ধাপ-০৩ঃ এখন আপনাকে একটি একাউন্ট এখানে তৈরি করে নিতে হবে। তার জন্য আপনার প্রয়োজন হবে একটি মোবাইল নাম্বার অথবা একটি ই-মেইল এড্রেস। তার পরে আপনার নাম্বারে একটি OTP কোড আসবে তার পরে সেটি দিয়ে আপনাকে একটি পাসওয়ার্ড দিয়ে একাউন্ট তৈরি করতে হবে।

ধাপ-৪ঃ এখন আপনাকে এখনে আপনার একাউন্ট লগইন করে নিতে হবে।

ধাপ০৫ঃ এখন আপনি যেই গাড়ির তথ্য জানতে চান, সেই গাড়ির নাম্বার এখানে বক্সে লিখতে হবে। তারপরে আপনার সামনে একটি ক্যাপচা কোড আসবে। সেটি পূরণ করে সার্চ বাটনে ক্লিক করার কিছুক্ষণের মধ্যেই আপনি সেই গাড়ির সকল তথ্য জানতে পেরে যাবেন।

পরিবহন অ্যাপের মাধ্যমে গাড়ির সকল তথ্য জানতে নিচের দেখানো ধাপগুলো অনুসরণ করুন।

ধাপ-০১ঃ পরিবহন মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে গাড়ির সকল তথ্য জানার জন্য প্রথমে আপনাকে ফোনের প্লে স্টোর থেকে আপনাকে M poribohon নামে এপ্লিকেশন টি ডাউনলোড করে নিতে হবে।

ধাপ-০২ঃ আপনি যদি উপরের দেখানো নিয়মে একটি একাউন্ট তৈরি করে না থাকেন তাহলে আপনাকে এখন একটি একাউন্ট এখানে তৈরি করে নিতে হবে।

ধাপ-০৩ঃ একাউন্ট তৈরি করার জন্য আপনাকে এখানে একটি মোবাইল নাম্বার অথবা একটি ই-মেইল এড্রেস দিতে হবে। এরপরে আপনার কাছে একটি OTP কোড আসবে। সেটি বসিয়ে দিয়ে একটি পাসওয়ার্ড সেট করে দিলেই আপনাএ একটি একাউন্ট তৈরি হয়ে যাবে।

ধাপ-০৪ঃ একাউন্ট তৈরি করা হয়ে গেলে এখন আপনাকে পরিবহন অ্যাপে আপনার একাউন্ট লগইন করে নিতে হবে। তারপরে আপনি যেই গাড়ির নাম্বার জানতে চান সেই গাড়ির নাম্বার প্রদান করতে হবে।

ধাপ-০৫ঃ তারপরে সেই গাড়ির নাম্বার দিয়ে একটি ক্যাপচা পূরণ করে দিয়ে সার্চ করলেই সেখানে আপনার কাঙ্খিত গাড়িটির সকল তথ্য জানতে পারবেন।

গাড়ির কাগজ করতে কত টাকা লাগে

একটি গাড়ির কাগজ করতে কত টাকা লাগে সেই সম্পর্কে জানতে আপনি বিআরটিএ এর অফিসশিয়াল ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার গাড়ির সিসি আর আপনার গাড়ির নাম্বার দিয়ে সার্চ করলেই জানতে পারবেন। তারপরেও আপনাদের ধারণা দেওয়ার জন্য গাড়ির কাগজ করতে কত টাকার প্রয়োজন হতে পারে তা নিম্নে তুলে ধরা হলো।

সকল গাড়ির জন্য এই সকল টাকার উপর সরকারি ভ্যাট ১৫% প্রদান করতে হবে।

গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ  সম্পর্কে সাধারণ জিজ্ঞাসা (FAQ)

প্রশ্নঃ গাড়ির রেজিস্ট্রেশন করতে কত টাকা লাগে?
উত্তরঃ গাড়ির রেজিস্ট্রেশন করতে সকল গাড়ির ক্ষাত্রে ৫০০ টাকা লাগে।

প্রশ্নঃ 100 সিসি মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন ফি কত?
উত্তরঃ 100 সিসি মোটরসাইকেল রেজিস্ট্রেশন ১২,২৬৭ টাকা

প্রশ্নঃ মোবাইলে কিভাবে BRTA র রেজিস্ট্রেশন লাইসেন্স চেক করবেন?
উত্তরঃ মোবাইলে BRTA র রেজিস্ট্রেশন লাইসেন্স চেক করার জন্য মোবাইলের মেসেজ অপশান থেকে টাইপ করুন NP আর সেটি পাঠিয়ে দিন 26969 নম্বরে।

লেখকের মন্তব্য

আজকে আমাদের এই আর্টিকেলের প্রধান আলোচনার বিষয় ছিলো গাড়ির নাম্বার দিয়ে মালিকের নাম বাংলাদেশ সম্পর্কে। আশা করছি আপনি পুরো পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ার মাধ্যমে উক্ত বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা বুঝতে পেরেছেন। এই রকম আরো তথ্যবহুল আর্টিকেল প্রতিদিন ফ্রীতে পড়তে আমাদের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

পেপারস্পট২৪ এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url