ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম - একাউন্ট চেক করা

মোবাইল দিয়ে অনলাইন ইনকামপ্রিয় পাঠক, ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে আপনি কি জানতে ইচ্ছুক। অথবা আপনি কি একাউন্ট চেক করা এর সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন। তাহলে আপনার জন্যই আজকের এই পোস্টটি। কারণ আজকের এই আর্টিকেলে ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পূর্ণ বিষয় তুলে ধরা হবে। তাই বিস্তারিত জানতে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন।
ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম
সেই সাথে আপনি আরো জানতে পারবেন ডাচ বাংলা একাউন্ট কত প্রকার ? ডাচ-বাংলা হোম লোন ডাচ বাংলা লোন নেওয়ার পদ্ধতি ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং সম্পর্কে। আপনি আজকের আর্টিকেলের মধ্যে ডাচ বাংলা একাউন্ট রিলেটেড সকল তথ্য পেয়ে থাকবেন। ডাচ বাংলা একাউন্ট খোলার নিয়ম ও সকল তথ্য সম্পর্কে জানতে আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ করুন।

পোস্ট সূচিপত্রঃ 

ভূমিকা

আমরা আজকে ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম ও মোবাইল ব্যাংকিং এর যাবতীয় তথ্য সম্পর্কে আলোচনা করব। আপনি যদি আজকের আর্টিকেলটি পড়েন তাহলে জানতে পারবেন ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে ডাচ-বাংলা ব্যাংক একাউন্ট সম্পর্কে মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট খোলার নিয়ম হোম লোন ব্যাংক লোন ইত্যাদিও জাতীয় তথ্য সম্পর্কে।

আজকের আর্টিকেলটি আপনি সম্পূর্ণ পড়লে ডাচ বাংলার সকল তথ্য সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং আপনি নিজেই অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। এজন্য অবশ্যই আর্টিকেলটি সম্পন্ন পরুন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সকল ব্যাবসায়ীদের জন্য জানা অত্যান্ত জরুরি। বিভিন্ন প্রকার ব্যবসায়ীরা তাদের ব্যবসা পরিচালনার জন্য ডাচ-বাংলা ব্যাংকের অধীনে সকল প্রকার ব্যবসায়ী কার্যক্রম পরিচালনা ও সুবিধা ভোগের জন্য ডাচ বাংলা ব্যাংক শেভিং একাউন্ট তৈরি করে থাকে। ডাচ বাংলা সেভিং একাউন্ট খোলার জন্য আপনাকে নির্দিষ্ট জেলার কোনো ডাচ-বাংলা ব্যাংকের যেকোনো শাখাতে যেতে হবে।

সেখানে যেয়ে আপনাকে একটি ফর্ম পূরণ করতে হবে । ও আপনার কিছু ডকুমেন্ট সেখানে জমা দিতে হবে। এভাবে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের অধীনের প্রতিনিধিরা আপনার ডাচ-বাংলা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট খুলে দিবে।

একাউন্ট চেক করা

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম জানার পরেই আসে কিভাবে এর একাউন্ট চেক করবো। আপনি যদি আপনার ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট চেক করতে চান তাহলে সবার প্রথমে আপনাকে যে বিষয় জানতে হবে সেটি হল আপনি যে ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট খুলেছেন সেই ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট নাম্বার দিয়ে কি আসলেই একাউন্টের ব্যালেন্স চেক করা সম্ভব। যার অর্থ এই দাঁড়ায় যে, উক্ত ব্যাংক এমন কোন সুবিধা প্রদান করে কিনা যার মাধ্যমে আপনি ঘরে বসেই অনলাইন এর মাধ্যমে একাউন্টের ব্যালেন্স চেক করে নিতে পারবেন।
একাউন্ট চেক করা
বাংলাদেশের প্রায় অনেকগুলো ব্যাংক রয়েছে যে সকল ব্যাংক তাদের মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপ্লিকেশন সিস্টেম চালু করেছে। এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করে আপনি ঘরে বসে অনলাইনে মাধ্যমে খুব সহজেই আপনার ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স সম্পর্কে জেনে নিতে পারবেন। এমন সুবিধা দেওয়ার ব্যাংকগুলোর মধ্যে অন্যতম কিছু ব্যাংক হল
  • সোনালী ব্যাংক লিমিটেড
  • ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড
  • সিটি ব্যাংক লিমিটেড
  • ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড
  • সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড
  • ইউসিবি ব্যাংক লিমিটেড
উপরে উল্লেখিত এ সকল ব্যাংকের সকলেরই একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে। যেটি ব্যবহার করে আপনি খুব সহজেই ঘরে বসে থেকে অনলাইন এর মাধ্যমে আপনার একাউন্টের ব্যালেন্স চেক করে নিতে পারবেন। উদাহরণস্বরূপ এখন আমরা ইসলামী ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট চেক করে দেখাবো কিভাবে চেক করতে হয়।

অনলাইনের মাধ্যমে মোবাইল এপ্লিকেশন ব্যবহার করি ইসলামী ব্যাংকের ব্যালেন্স চেক করার জন্য একটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন আপনার গুগল প্লে স্টোর থেকে ডাউনলোড করে নিতে হবে। এই অ্যাপ্লিকেশন টির নাম হলো সেলফিন। যেটা আপনি গুগলে প্লে স্টোরে অ্যাভেলেবেল পেয়ে যাবেন।

প্রথমে আপনাকে সেলফি অ্যাপ্লিকেশনটি ডাউনলোড করে ইন্সটল করে নিতে হবে। ইন্সটল করা হয়ে গেলে আপনি এপ্লিকেশনটির মধ্যে প্রবেশ করুন। তারপরে সেখানে একটা অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিতে হবে। আপনি যদি চান তাহলে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র ব্যবহার করার মাধ্যমে একটি একাউন্ট তৈরি করে নিতে পারেন।

অথবা আপনি যদি চান তাহলে আপনার ব্যাংক একাউন্টের নম্বর দে একটা অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন। যেকোন ভাবে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করে নিলেই হল। তারপরে সেখানে গিয়ে দেখবেন আপনি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সম্পৃক্ত করার অপশন পেয়ে যাবেন।

যখন এখানে আপনি আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সম্পৃক্ত করে নিবেন, তারপর থেকে আপনি আপনার ব্যাংকের একাউন্টের সকল যাবতীয় কার্যক্রম এই অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করেই করে নিতে পারবেন। আশা করছি আপনাদের সম্পূর্ণ বিষয়টি সম্পর্কে অবগত করতে সক্ষম হয়েছি। এই সম্পর্কে আপনাদের কোন মতামত থাকলে আপনি মন্তব্যের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাতে পারেন।

ডাচ বাংলা ব্যাংক সম্পর্কে

ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড এর শর্ট ফর্ম হচ্ছে ডিবিবিএল। ডাচ বাংলা ব্যাংক হচ্ছে বাংলাদেশ ও নেদারল্যান্ডের যৌথভাবে একই সমন্বয়ে তাদের উদ্যোগে একটি প্রতিষ্ঠিত বেসরকারি ব্যবসায়ী বাণিজ্যিক ব্যাংক বলা যায়। ব্যাংকটি চালু করেন এটিএম সাহাবুদ্দিন আহমেদ। ডাচ বাংলা ব্যাংক প্রথম যাত্রা শুরু করে ০৩ জুন ১৯৯৬ সালে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট কত প্রকার

আপনি যদি ডাচ বাংলা অ্যাকাউন্ট সম্পর্কে জানতে চান বা ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম বা আপনি যদি একটি ডাচ-বাংলা অ্যাকাউন্ট খুলতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে প্রথমে জানতে হবে ডাচ বাংলা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট কত প্রকার। ডাচ-বাংলা ব্যাংক একাউন্ট হচ্ছে সেটা ব্যবহারকারীর উপর নির্ভর করবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট সাধারণত দুই প্রকার।
  • স্টুডেন্ট অ্যাকাউন্ট
  • সেভিং একাউন্ট
ডাচ বাংলা ব্যাংকে এর মাধ্যমে আপনি এই দুই ধরনের একাউন্ট খুলে থাকতে পারবেন। আপনি যদি অবশ্যই স্টুডেন্ট হন তাহলে আপনাকে অবশ্যই স্টুডেন্ট একাউন্ট খুলতে হবে। আর যে কেউ শেভিং অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবে। আপনি যদি চান তাহলে আপনি দুই রকমের অ্যাকাউন্ট খুলে আপনি সকল সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে পারবেন ও সকল একাউন্ট বা ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে নীচে জানতে পারবেন।

ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং

নিশ্চয়ই আপনার মনে এ প্রশ্নটিই সর্বপ্রথম এসেছে ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং কি? ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং হলো সাধারণত ডাচ-বাংলা ব্যাংক তার নাম পরিবর্তন করে তার নতুন নাম রেখেছে রকেট যা এটি মোবাইল সার্ভিস হয়ে থাকে। আপনি এই সার্ভিসটি মোবাইলেও খুলে থাকতে পারবেন। ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং বা রকেট একই জিনিস।

আপনি যখন এই ব্যাংক একাউন্টটি মোবাইলে খুলবেন তখন এটার নাম হবে রকেট বা ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট। তো অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন ডাচ-বাংলা ব্যাংক একাউন্টের মোবাইল ব্যাংকিং যার রকেট নামে পরিচিত তার মাধ্যমে বর্তমানে ব্যাংকিং সেবা এখন আমাদের হাতের মুঠোয়। আপনি বলতে পারেন রকেট হচ্ছে ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থার আরও একটি নতুন নাম। ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং দেশে প্রথম মোবাইল ব্যাংকিং হিসেবে পরিচিত লাভ করে যা আমরা রকেট নাম এ জানি।

ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট খোলার নিয়ম

আপনি চাইলে ঘরে বেশে নিজের মোবাইল দিয়ে ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে জেনে মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট খুলতে পারেন। কিভাবে খুলবেন তা নিচে দেওয়া হলঃ
সর্বপ্রথম আপনাকে আপনার অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে ডাচ-বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং অ্যাপ রকেট অ্যাপটি ইন্সটল করতে হবে।
  • অ্যাপটি ইন্সটল করার পরে সিলেট ল্যাঙ্গুয়েজ অপশন আসবে। সেখানে ল্যাংগুয়েজ সিলেক্ট করতে হবে।
  • তারপর আপনার মোবাইল নাম্বার চাইবে আপনার মোবাইল নাম্বারটি দিতে হবে। দিয়ে নেক্সট করতে হবে।
  • এরপর ডাচ বাংলা ব্যাংক থেকে আপনার ফোনে একটি কল আসবে। সে কলে বলবে আপনার ৪ ডিজিট নতুন পিন দিন। আপনাকে ফোনের ডায়াল প্যাড অন করে আপনি যে পিনটি দিতে চান সে পিন টি ডায়াল করুন।
  • পিন নাম্বার দেওয়া হয়ে গেলে সিকিউরিটি কোড অপশন অটোফিল হবে। তার নিচে পিন অপশন থাকবে আপনার সেই দেওয়া চার ডিজিট প্রিন্টির নিচে দিয়ে নেক্সট করতে হবে।
  • এবার অ্যাপসের ভিতর নিয়ে যেয়ে আপনাকে আপডেট KYC বাটনে ক্লিক করে সকল সঠিক তথ্য দিতে হবে।
  • KYC দেওয়া হয়ে গেলে আপনার শেষ অপশনে আপনার এনআইডির সামনের ও পেছনের ছবি চাইবে আপনার ফোন থেকে ছবি তুলে তা আপলোড করুন।
  • আপলোড করার পর আপনার কিছু পার্সোনাল তথ্য চাইবে সে তথ্যগুলো দেওয়ার পর সাবমিট করে দেন।
  • এভাবেই আপনি ঘরে বসে নিজের স্মার্ট মোবাইল দিয়ে ডাচ বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট খুলতে পারবে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট

ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট খোলার জন্য যেসব প্রয়োজনে ডকুমেন্ট আপনার সঙ্গে রাখতে হবে তা খুবই অতি জরুরী সেসব ডকুমেন্ট ছাড়া আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংক সেভিং একাউন্ট খুলতে পারবেন না। এগুলো ব্যাংকের অধীনে জমা থাকবে। কি কি ডকুমেন্ট লাগবে তার নিচে দেওয়া হলঃ
  • সর্বপ্রথম আপনার সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের দুই কপি রঙ্গিন ছবি লাগবে।
  • এনআইডির ফটোকপি
  • আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ট্রেড লাইসেন্স
  • টিন সার্টিফিকেট
  • ট্যাক্স সার্টিফিকেট
  • সর্বশেষ এক বছরের ব্যাংক হিসাব
এ সকল কাগজ হলে আপনি ডাচ বাংলা সেভিং একাউন্ট খুলতে পারবেন। ডাচ বাংলা সেভিং একাউন্ট খুলতে হলে অবশ্যই আপনাকে এ সকল ডকুমেন্ট সঙ্গে রাখতে হবে।

একাউন্ট খুলতে কত টাকা লাগে

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম সম্পর্কে আমরা ইতিপূর্বে জেনেছি। এছাড়াও উপরে আমরা জেনেছি ডাচ বাংলা সেভিং একাউন্ট খুলতে হবে কিভাবে এবং প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট। কিন্তু ডাচ বাংলা শেভিং অ্যাকাউন্ট খুলতে আপনাকে ৫০০ টাকা অ্যাকাউন্টে জমা রাখতে হবে। ৫০০ টাকা একাউন্টে রাখলে আপনার অ্যাকাউন্টটি সচল হয়ে থাকবে।

আপনি যদি ডাচ বাংলা সেভিং অ্যাকাউন্ট খুলতে যান তাহলে অবশ্যই আপনার কাছ থেকে ৫০০ টাকা জমা রাখবে ডাচ বাংলা ব্যাংক প্রতিনিধিরা। তাহলে আপনি বুঝতেই পেরেছেন ডাচ বাংলা শেভিং অ্যাকাউন্ট খুলতে মোট ৫০০ টাকা লাগে।

ডাচ বাংলা ব্যাংক হোম লোন

আমরা এখন জানবো ডাচ-বাংলা ব্যাংক হোম লোন ২০২৩ সম্পর্কে। ডাচ বাংলা হোম লোন সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য নিচে দেওয়া হলঃ
  • ডাচ-বাংলা ব্যাংক থেকে আপনি হোম লোন হিসেবে সর্বোচ্চ ২ কোটি টাকা পর্যন্ত আপনি লোন নিতে পারবেন। এর উপরে আপনি লোন নিতে পারবেন না।
  • ডাচ-বাংলা ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে আপনি বাড়ি ফ্ল্যাট কিংবা যেকোনো কিছু ক্রয় করতে পারবেন
  • সিটি কর্পোরেশন এলাকায় আপনি বাড়ি তৈরি করতে পারবেন
  • আপনি অনেক সুযোগ-সুবিধা পাবেন এখান থেকে হোম লোন নিলে। যেমন রিফাইনেন্সের সুবিধা।
  • ডাচ-বাংলা হোম লোনে ইন্টারেস্ট রেট সর্বোচ্চ ধরে 8%।
এগুলো হচ্ছে ডাচ বাংলা ব্যাংক হোম লোনের সকল সুযোগ সুবিধা ও তথ্য সম্পর্কে। ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড সকল প্রকার হোম লোন দিয়ে থাকে সেই সাথে বিভিন্ন প্রকার লোন দিয়ে থাকে।

লোনের পরিমাণ মেয়াদ ইন্টারেস্ট সম্পর্কে

ডাচ বাংলা ব্যাংকের প্রায় সকল ধরনের লোক এই সেভিং বা লোনের জন্য আবেদন করতে পারবেন। ডাচ বাংলা ব্যাংকের ৮ পার্সেন্ট সুদে সর্বনিম্ন ৫০০০০ থেকে সর্বোচ্চ ২ কোটি টাকা পর্যন্ত হোম লোন ও নর্মাল লোন সর্বোচ্চ ২০ লাখ টাকা পর্যন্ত আপনি ডাচ বাংলা ব্যাংক থেকে লোন নিতে পারবেন। মাসিক ভিত্তিতে আপনি এই লোন শোধ করতে পারবেন। শোধ করার সর্বোচ্চ সময় পাবেন পাঁচ বছর।

ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট সম্পর্কে সাধারণ জিজ্ঞাসা (FAQ)

প্রশ্নঃ ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কত টাকা খরচ হয়?
উত্তরঃ ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কোন টাকাই খরচ হয় না। তবে ব্যাংক একাউন্ট খোলার পরে প্রাইমারি ডিপোজিট করতে হয়। সেটি হতে পারে ১০০ টাকা থেকে ২০০০ টাকা পর্যন্ত। আর এই টাকা আপনার ব্যাংক একাউন্টেই থাকবে।

প্রশ্নঃ ব্যাংক একাউন্ট খোলার কত দিন পর চেক বই পাওয়া যায়?
উত্তরঃ ব্যাংক একাউন্ট খোলার ১৫ থেকে ৩০ দিনের মধ্যেই আপনি চেক বই পেয়ে যাবেন।

প্রশ্নঃ ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে কি কি প্রয়োজন?
উত্তরঃ ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খুলতে যে সকল ডকুমেন্টের প্রয়োজন হয় তা হলো 
  • সর্বপ্রথম আপনার সদ্য তোলা পাসপোর্ট সাইজের দুই কপি রঙ্গিন ছবি লাগবে।
  • এনআইডির ফটোকপি
  • আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ট্রেড লাইসেন্স
  • টিন সার্টিফিকেট
  • ট্যাক্স সার্টিফিকেট
  • সর্বশেষ এক বছরের ব্যাংক হিসাব
প্রশ্নঃ ডাচ বাংলা ব্যাংক ও রকেট কি এক?
উত্তরঃ রকেট হলো ডাচ বাংলা ব্যাংকের একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা।

লেখকের মন্তব্য। ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম

আজকের আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনি জানতে পেরেছেন ডাচ বাংলা ব্যাংক একাউন্ট খোলার নিয়ম ও একাউন্ট চেক করার সম্পর্কে। আশা করছি আপনি সম্পূর্ণ আর্তিকেলটি মনোযোগ সহকারে শেষ পর্যন্ত পড়েছেন। আর মনোযোগ দিয়ে পড়ার মাধ্যমে আপনি উক্ত সকল বিষয়গুলো সম্পর্কে ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন। 

আজকের আর্টিকেলটি আপনার কাছে কেমন লাগলো আপনার মূল্যবান মতামতটি জানিয়ে দিবেন আমাদের কমেন্ট বক্সে। আজকের আর্টিকেলটি যদি আপনার কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে শেয়ার করে ছড়িয়ে দিয়েন আপনার সকল আত্মীয় সকলের কাছে। আজকের আর্টিকেলটি পড়ার জন্য আপনাকে আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

পেপারস্পট২৪ এর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url